সরকারি বেধে দেয়া দামে পাট বিক্রি করতে পারছেন না কৃষকরা

1505275405-picsay

সরকারি বেধে দেয়া দামে পাট বিক্রি করতে পারছেন না মেহেরপুরের কৃষকরা। মন প্রতি ৯০০ থেকে এক হাজার দরে পাট বিক্রি করে উৎপান খরচই উঠছেনা চাষিদের। সরকারি পাট ক্রয় কেন্দ্রের সহ-ব্যবস্থাপক বলছেন, সময়মত কৃষকদের পাটের দাম দিতে না পারায় পাট দিতে চাচ্ছেন না কৃষকেরা। তাই ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে পাট কিনছেন তারা।

সোনালি আঁশ খ্যাত পাটের সে সুদিন আর নেই। তারপরও লাভের আশায় পাট চাষ করে যাচ্ছেন কৃষকরা। চলতি মৌসুমে সরকার মন প্রতি পাটের মূল্য নির্ধারণ করেছে ১ হাজার ৭৫০ টাকা। তবে এর প্রভাব নেই মেহেরপুরের বাজারে। সরকারের বেধে দেয়া অর্ধেক দামে পাট বিক্রি করতে হচ্ছে কৃষকদের। অথচ বিঘা প্রতি জমিতে পাট উৎপাদন করতে খরচ হচ্ছে ৮ থেকে ৯ হাজার টাকা। আর এই পাট বিক্রি করতে হচ্ছে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকায়।

পাট ক্রয় কেন্দ্রের সহ-ব্যবস্থাপকের দাবি, পাট কেনার ৬ থেকে ৭ মাস পর পাটের দাম দেয়া হয় কৃষকদের। একারণে তারা পাট দিতে অনাগ্রহ প্রকাশ করছেন। এদিকে, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বলছেন, এবার পাটের ফলন ভাল হয়েছে। তবে পাট জাগে কাদা মাটি ব্যবহারের কারণে মান নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসেব মতে, জেলায় এবার ২৫ হাজার ৮৪৫ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। যা থেকে ৭৭ হাজার ৫৩৫ মেট্রিকটন পাট উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *